ব্লগ বানানোর উপায় : কীভাবে ব্লগ বানাবেন এবং কেন বানাবেন জেনে নিন।

সাধারণত আগে  মানুষ ব্লগিং করে থাকত শখের বশে। কিন্তু ধীরে ধীরে ব্লগ এখন অনেক জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছে এবং বর্তমানে ব্লগ থেকে আয় অনেক পথ তৈরি হয়ে গিয়েছে। ব্লগ এমন একটা জায়গায় পৌঁছে গিয়েছে অনলাইনে সবচেয়ে সম্মানজনক পেশা হিসেবে এখন ব্লগকে তুলনা করা হয়ে থাকে। এছাড়াও ব্লগিং করার আরো অনেক সুবিধা রয়েছে। ব্লগের মাধ্যমে একদিকে যেমন আপনার দক্ষতা ও সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পেয়ে থাকে তেমনি আপনি নিজেকে আত্মপ্রকাশ করতে পারবেন অনেকের কাছে  এর মাধ্যমে। তাই জেনে নিন ব্লগ বানানোর উপায় ।

তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক ব্লগ বানানোর উপায় ও ব্লগিং করার সুবিধাঃ

ব্লগ এর সুবিধা 

আপনি যখন একটি ব্লগ শুরু করবেন তখন এর অনেক সুবিধা রয়েছে। আপনি ব্লগ থেকে এমন বিষয়গুলো জানতে পারবেন যা অন্য কোন উপায়ে আপনি পারতেন না। তাছাড়া ব্লগিং করার ফলে সবচেয়ে বড় যে উপকারটা  আমাদের হয়ে থাকে সেটা হচ্ছে আমাদের সৃজনশীলতা বৃদ্ধি। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক ব্লগ বানানোর উপায় ও ব্লগ বানানোর কিছু সুবিধাঃ

অনুশীলন সাফল্যের চাবিকাঠি 

আপনি সাধারণত যত বেশি আপনার নৈপুণ্যের ওপর কাজ করবেন,ততবেশি আপনার ভয়েস পাবেন, কি করবেন তার শিখুন, আবিষ্কার করতে থাকুন কি কাজ করে এবং কিনা। আপনি যে কাজটি করলেন সে কাজটি জোরে জোরে পড়ুন তাহলে আপনি আপনার ক্রুটি  দেখতে পারবেন। আর আপনি যত বেশি অনুশীলন করবেন এক্ষেত্রে ততো বেশি সফল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। 

সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পাবে 

আপনি ব্লগিং করার সাথে সাথে আপনার সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পেতে থাকবে। আপনি যখন একটি ব্লগ তৈরি করবেন তখন আপনি আপনার ব্লগের কন্টিনিউয়াসলি কিছু আর্টিকেল লিখবেন। আপনি এইভাবে প্রতিদিন কিছু কিছু বিষয়ে লিখতে লিখতে আপনার ভেতর নতুন নতুন জিনিস নিয়ে লেখার আগ্রহ তৈরি হবে। তখন আপনার বিভিন্ন সৃজনশীল জিনিস নিয়ে লিখতে মন বলবে। যার ফলে আপনার সৃজনশীলতা দিন দিন বাড়তেই থাকবে। ব্লগিং করার সবচেয়ে বড় একটি উপকার হচ্ছে এটি। আপনি প্রতিনিয়ত এখান থেকে নতুন নতুন জিনিস জানতে পারবেন শিখতে পারবেন। 

নিজেকে আত্মপ্রকাশ করতে পারবেন 

আপনি ব্লগ লেখার মাধ্যমে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করতে পারবেন। আপনি যখন একটি ব্লগ তৈরি করবেন সেখানে আপনি নিয়মিত অবশ্যই পোস্ট  করবেন। তারপর আপনি আপনার সেই পোস্টগুলো মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য বিভিন্নভাবে শেয়ার করবেন। আপনার লেখা বিষয়গুলো মানুষ পড়বে দোতারা এর মাধ্যমে অনেক কিছু জানতেও পারবে। আস্তে আস্তে আপনার ব্লগকে দিকে বড় হতে থাকবে। যার ফলে আপনি অনেক জনের সাথে পরিচিত হতে পারবেন বা নিজেকে এর মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করতে পারবেন। 

আয়ের বিভিন্ন মাধ্যম তৈরি হবে 

আপনি যখন দীর্ঘদিন ধরে ব্লগ লিখবেন বা ব্লগিং করবেন তখন এক সময় আপনি আপনার ব্লগ থেকে বিভিন্ন উপায়ে আয় করার জন্য ভাবতে পারেন। আপনি চাইলে আপনার ব্লগের গুগল এডসেন্স বা অ্যাফিলিয়েটের মত প্রোগ্রামে যোগ দিয়ে নিজের হাত খরচের জন্য  পার্টটাইম আয় করতে পারেন। ব্লগ থেকে আপনি আজীবন আয় করতে পারবেন যদি আপনি ধৈর্য ধরে ব্লগিং করতে পারেন এবং ব্লগটা বড় করতে পারেন। আপনার ব্লগ যখন বড় হয়ে যাবে তখন বিভিন্ন জায়গা থেকে আপনি অফার পাবেন। যা সাধারণত ব্লগিং করার বড় একটি সুবিধা। আর আপনি যদি ছাত্র হন তাহলে তো আর কোন কথাই নেই আপনি আপনার ব্লগ থেকে দীর্ঘমেয়াদি আয় করতে পারবেন। 

ব্লগ বানানোর জন্য কি কি লাগে 

অনলাইনে ব্লগ বানানোর জন্য বিভিন্ন ধরনের প্লাটফর্ম করেছেন। তবে আপনি যদি একেবারে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে আপনি গুগোল ব্লগার এর মাধ্যমে ব্লগ তৈরি করতে পারেন। গুগোল ব্লগার আপনাকে প্রথমে ফ্রিতে এখানে ব্লগ তৈরি করার সুযোগ করে দিবে। আর আপনি যদি প্রফেশনালভাবে ব্লগ বানাতে চান তাহলে আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে করতে  পারেন। ওয়াডপ্রেস ব্লগ বানানোর জন্য আপনার দরকার হবে হোস্টিং ডোমেইন এবং থিম। আপনি এই তিনটি জিনিস নিয়ে ওয়ার্ডপ্রেসে একটি প্রফেশনাল ব্লগ সাইট তৈরি করে ফেলতে পারেন। ওয়ার্ডপ্রেস হচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। আপনি চাইলে এর মাধ্যমে খুব সহজে একটি ডায়নামিক সাইট তৈরি করে ফেলতে পারেন আপনার ব্লগের জন্য। 

ব্লগের মাধ্যমে আয় 

আপনার যখন ব্লগ তৈরী করা হয়ে যাবে আপনি যদি মনে করেন যে আমি ব্লগ থেকে আয় করবেন সেটাও আপনি করতে পারেন। ব্লগ থেকে এখন বর্তমানে বিভিন্ন উপায়ে আয় করা যাচ্ছে শুধু তাই নয় আপনি এখন বাংলাতে ব্লগিং করে আপনি বিভিন্নভাবে আয় করতে পারেন। ব্লগ থেকে আয় করা যায় এ কথাটা সত্য কিন্তু আপনারা এই কাজটা করবেন না যে ব্লগ শুরু করার জন্য চিন্তা। তাহলে আপনারা কখনোই ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন না। আপনার ব্লগ ডি যখন ধীরে ধীরে বড় হবে এবং আপনার ব্লগে নিয়মিত ভিজিটর আসতে শুরু করবে তখন আপনি আপনার ব্লগ থেকে আয় করার চিন্তা করতে পারেন। ইংলিশে ব্লগ থেকে আয় করার জনপ্রিয় কয়েকটি উপায় দেয়া হলোঃ

গুগল এডসেন্স 

★অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং 

★নিজের প্রোডাক্ট বিক্রি করে আয় 

★লোকাল বিজ্ঞাপন 

★পেইড রিভিউ 

আপনি সাধারণত এসব উপায় গুলো ব্যবহার করে ব্লগ থেকে দীর্ঘমেয়াদি আয় করতে পারেন। তাহলে তো জেনে নিলেন ব্লগ বানানোর উপায় ও সুবিধা তাহলে শুরু করে দিন।

পরিশেষে, ব্লগ থেকে আপনি যেভাবে আয় করুন না কেন আপনাকে অনেক কষ্ট করতে হবে। আপনাকে ধৈর্য ধরে কাজ করে যেতে হবে নিত্যদিন।ব্লগ থেকে একবার যদি আয় শুরু হয়ে যায় তাহলে সেটা সারা জীবন চলতে থাকবে। অনেক ব্লগার আছেন যারা প্রথমে অনেক কষ্ট করেন কিন্তু মাঝপথে এসে তারা হাল ছেড়ে দেন। ব্লগিং করতে হলে কখনো হাল ছাড়া যাবেনা। তাহলেই আপনি একদিন সফল ব্লগার হয়ে উঠবেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *